রবিবার, ২৯ মার্চ , ২০২০. ৫:২২ অপরাহ্ণ,
Home অপরাধ জগত মাদক আইনে মামলা, ফেনী কারাগার থেকে কুমিল্লা কারাগারে আরমান

মাদক আইনে মামলা, ফেনী কারাগার থেকে কুমিল্লা কারাগারে আরমান

মাদক আইনে মামলা, ফেনী কারাগার থেকে কুমিল্লা কারাগারে আরমান
Spread the love

মোহাম্মদ রিয়াদ,দাগনভূঞা (ফেনী)প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে র‌্যাবের অভিযানে গ্রেফতার ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সহ সভাপতি এনামুল হক আরমানকে ফেনী থেকে কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারে নেওয়া হয়েছে। রোববার রাত পৌনে ১১টার দিকে কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্য দিয়ে র‌্যাব-৭ তাকে ফেনী কারাগার থেকে কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে আসে। কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার মো. ফোরকান ওয়াহিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, মাদক সেবনের অভিযোগে আরমানকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়। ফেনী কারাগার থেকে রাতে আমাদের কারাগারে নিয়ে আসেে র‌্যাব-৭ এর একটি টিম। ১৪০ পিস ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনায় র‌্যাব বাদী হয়ে আরমানের বিরুদ্ধে চৌদ্দগ্রাম থানায় পৃথক আরও একটি মামলা করেছে। এর আগে রোববার সন্ধ্যায় হেলিকপ্টারযোগে কড়া নিরাপত্তার ফেনীর ভাষা শহীদ সালাম স্টেডিয়ামে নেয়া হয় আরমানকে। পরে তাকে ফেনী কারাগারে নেওয়া হয়। শনিবার মধ্যরাতে জেলার সীমান্তবর্তী ও জামায়াত অধ্যুষিত আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জুশ্রীপুর গ্রামের মনির চৌধুরীর বাড়ি থেকে ইসমাইল হোসেন চৌধুরী ওরফে সম্রাট ও এনামুল হক আরমানকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। বাড়ির মালিক মনির চৌধুরী স্টার লাইন পরিবহনের মালিক ও ফেনী পৌরসভার মেয়র হাজী আলা উদ্দিনের ভগ্নিপতি। মনির চৌধুরী নিজেও স্টার লাইন পরিহনের একজন পরিচালক। পরিবহনের ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার কারণে আলা উদ্দিন ও মনির চৌধুরীর সাথে ঘনিষ্ঠতা ছিল সম্রাট ও আরমানের। গ্রেফতারকালে আরমান মদ্যপ অবস্থায় থাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাকে বিনাশ্রম ৬ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়। এদিকে চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল মাহফুজ জানান, আরমানের কাছ থেকে ১৪০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারের ঘটনায় র‌্যাব-৭ এর এসআই সজিব মিয়া বাদী হয়ে রাতে মাদক আইনে থানায় অভিযোগ দাখিল করেছেন। র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক (সিও) অতিরিক্ত ডিআইজি মো. মোজাম্মেল হক জানান, রোববার দুপুরে সম্রাটের সহযোগী যুবলীগ থেকে সদ্য বহিষ্কৃত ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সহ-সভাপতি এনামুল হক আরমানের মিরপুর-২ নম্বরের বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। তখন বাসাটি ফাঁকা ও তালাবদ্ধ ছিলো। পরে রাজধানীর কলাবাগানে আরমানের আরো একটি বাসায় অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব।কে এই আরমান? ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের সহসভাপতি এনামুল হক আরমান ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া উপজেলার পাঠাননগর ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামের মুন্সী বাড়ির ননু মিয়ার ছেলে। আরমানের উত্থান ঘটে রাজধানীর বায়তুল মোকাররম এলাকা থেকে। পাকিস্তান ও সিঙ্গাপুর থেকে লাগেজসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য এনে বায়তুল মোকাররমে বিক্রি করতেন। আরমান একসময় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিকটাত্মীয় ‘বাউন্ডারি ইকবাল’ হিসেবে পরিচিত ইকবাল হোসেনের ঘনিষ্ঠ হয়ে ওঠেন। ইকবালের যাতায়াত ছিল হাওয়া ভবনে। তার মাধ্যমে আরমানও হাওয়া ভবনঘনিষ্ঠ হন। শামিল হন বিএনপির রাজনীতিতে। পদ-পদবি না থাকলেও হাওয়া ভবনঘনিষ্ঠ বলে মতিঝিল ক্লাবপাড়ায় প্রভাবশালী হয়ে ওঠেন তিনি। বিএনপি আমলেই আরমান ফকিরাপুলের কয়েকটি ক্লাবের জুয়ার আসর নিয়ন্ত্রণ শুরু করেন।


Spread the love